বারুদঠাসা ব্যারাকপুরের নগরপাল হলেন অজয় ঠাকুর

বারুদঠাসা ব্যারাকপুরকে ঠান্ডা করতেই কি মনোজ ভার্মার বদলে পুলিশ কমিশনার সাহসি আইপিএস অজয় ঠাকুর

ধৃতরাষ্ট্র দত্ত: ব্যারাকপুরের চারপাশটা অন্ধকার হয়ে রয়েছে। বারুদের গন্ধে ভরপুর । একের পর এক হাড়হিম করা খুনের ঘটনা ঘটে চলেছে। সর্বত্র শুধু ভয় আর আতঙ্ক। আশঙ্কার কালো মেঘ যেন ব্যারাকপুরের নাগরিকদের মাথার ওপর দিয়ে যাতায়াত করছে।
সেই কালো সময়ের প্রতিধ্বনিতেই পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের নির্দেশে ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের নগরপাল মনোজ ভার্মাকে বদলি করে নতুন নগরপাল করা হলো সাহসি আইপিএস অজয় ঠাকুরকে। অন্ধকারের মধ্যে আলো দেখতে চাওয়া মানুষের চিরকালের স্বভাব। দুর্দিনের মধ্যে সুদিনের আশা করা মানুষের আজীবনের অভ্যেস। তাই ব্যারাকপুরের নতুন নগরপাল হিসেবে অজয় ঠাকুর দায়িত্ব নেওয়ার পরেই ব্যারাকপুরবাসি বারুদের গন্ধ ভুলতে চাইছেন। খুন পাল্টা খুন। লুটপাট। প্রভাবশালীদের মদতে কতিপয় পুলিশের সাজানো কেস।এমনকি ভাটপাড়ার দাঙ্গার রক্তাক্ত ইতিহাসও মন থেকে মুছে ফেলতে চাইছেন। ফিরে আসতে চাইছেন স্বাভাবিক ছন্দে।

এই বিপন্ন কালো সময়ের মাঝখানে দাঁড়িয়ে ব্যারাকপুরবাসি জীবনের শান্তির রং ফিরে পেতে কেন অপেক্ষা করছেন?
কারণ একটাই, ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের নতুন নগরপাল অজয় ঠাকুরের অপরাধ দমনে পূর্বের উজ্জ্বল ভূমিকা ও অভিজ্ঞতার কথা ব্যারাকপুরবাসির নখদর্পণে।
সব পুলিশই অপরাধীদের চোখে দেখে। কিন্তু অপরাধীদের চেনার চোখ সকল পুলিশের থাকে না। সে-চোখ যে নিয়ে আসে,সে নিয়ে আসে। সেই মেধা, সেই মনন, সেই বোধ, সেই প্রতিভা রয়েছে সাহসি আইপিএস অজয় ঠাকুরের। তাঁর চোখ এড়িয়ে অপরাধি অপরাধ করে কখনও পার পায় না। সে পুলিশ হলেও নয়।

তাই সৎ-সাহসি আইপিএস অজয় ঠাকুরের অপরাধি চেনার তীক্ষ্ণ চোখের মধ্যে দিয়ে ব্যারাকপুরের অগণিত মানুষ শান্তির স্বপ্ন দেখছেন। অপরাধমুক্ত ব্যারাকপুর শিল্পনগরি দেখতে চাইছেন। যে-কোন সফল পুলিশ অফিসারের উত্তরণ এখানেই।

বহু আগে ব্যারাকপুরের এসডিপিও ছিলেন আইপিএস অজয় ঠাকুর। অধুনা ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের গোয়েন্দাপ্রধান ও পরে উপ-নগরপালের দায়িত্ব সামলেছেন নির্ভীক ভাবে।

জগদ্দল ভাটপাড়ার অসহিষ্ণু পরিস্থিতি সামলাতে উজ্জ্বল ভূমিকা নিয়েছিলেন বছর দুয়েক আগে। শান্তির পক্ষে এক অভাবনীয় দিকচিহ্ন দিয়েছিলেন সেখানকার অসহায় বিধ্বস্ত নাগরিকদের কাছে।

মন খোলা, সাদাকে সাদা বলা, হার না মানা একজন পুলিশ অফিসার হিসেবে অনেক সময় বিচার না পাওয়া মানুষের কাঁধে ভরসা জোগানো হাত রাখেন আইপিএস অজয় ঠাকুর। তাঁর নিরপেক্ষ তদন্তে বহু সময়ে কিনারা হয়েছে চেপে যাওয়া বড় বড় অপরাধের।বেড়িয়ে পড়েছে অনেক অজানা তথ্য। তাঁর বিশ্বাসের পথ অকুতোভয়, টানটান। অপরাধ দমনে সব সময় এগিয়ে যান।

ব্যারাকপুরের আকাশ থেকে বারুদের গন্ধ মুছে শান্তির পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে আইপিএস অজয় ঠাকুর নতুন সফরে পা বাড়ালেন। হলেন ব্যারাকপুরের নবনিযুক্ত নগরপাল। তাঁর নতুন যাত্রা শুরু হলো মাত্র। তিনি দেখবেন। এবার নগরপাল হিসেবে অপরাধ আর অপরাধি চেনা নিজের সেই তীক্ষ্ণ চোখ দিয়ে ব্যারাকপুর শিল্পনগরিকে।

Related posts

Leave a Comment